আজ আমরা জানবো দশ মহাবিদ্যার প্রথম দেবী মা কালী ও তার এই ভয়ঙ্কর রূপের পিছনে লুকিয়ে থাকা অজানা রহস্যের সাথে সাথে মা কালীর মূর্তির প্রকারভেদের কিছু অজানা তথ্যের সম্বন্ধে।

যে কাল সর্ব জীবের গ্রাসকারী, সেই কালেরও যিনি গ্রাসকারীনি, মহানির্বাণ তন্ত্র বলেন তিনিই কালী – আদ্যাশক্তি।

কলনাৎ সর্বভূতানাং মহাকালঃ প্রকীত্তিরত।
মহাকালস্য কলনাৎ ত্বমাদ্যা কালিকা পরা।

কাল নির্মম সত্য, কিন্তু তাই বলে চূড়ান্ত সত্য নয়। কালেরও নিয়ন্ত্রী শক্তি আছে। কালশক্তির প্রভাবেই জগতের উৎপত্তি ও স্থিতি। মহাপ্রলয়ে সেই মহাকালই আবার সমগ্র সৃষ্টিকে গ্রাস করছেন। কিন্তু যে মহাকাল, সেও পরিণামের অধীন। মহাপ্রলয়ে কালশক্তি মহাকালীর ভিতরেই নিঃশেষে লীন হয়ে যায়।

রামপ্রসাদের ভাষায় –
“কালের কাল মহাকাল সে কাল মায়ের পদানত।”

কালী তন্ত্রের উক্তি –
“কালনিয়ন্ত্রাৎ কালী তত্ত্বজ্ঞানপ্রদায়িনী।”

মহানির্বাণ তন্ত্রে কালী নিখিল বিশ্বের আদি বীজ। কালের উৎপত্তি যখন হয় নি, তখন ছিলেন মহাকালী।

“তম আসীত্তমসা গুঢ়মগ্রে”

“তমো বা ইদমেকমগ্র আসীৎ”

এই যে অনাদি অনন্ত শুদ্ধ তমস্ – তন্ত্র শাস্ত্র এঁকেই আখ্যা দিয়েছেন আদ্যাশক্তি কালী রূপে। কালীর এ কালো রুপ বৈভবের মহিমা বাক্য মনের অগোচর।

মহানির্বাণ তন্ত্রে –
“সৃষ্টৈরাদৌ ত্বমেকাসীত্তোমারুপগোচরম্”

হে দেবী, সৃষ্টির আদিতে তমো রুপে তুমিই মাত্র ছিলে, তোমার সে তমোময় রুপ বাক্য ও মনের অগোচর।

মা কালী মহাশক্তি। যা ছিল, যা আছে এবং যা থাকবে সব মা কালীর মধ্যেই আছে। অনন্ত, আদি, বর্তমান সব কালী মায়ের মধ্যেই আছে।

ধ্বংসের মধ্যেই সৃষ্টির বীজ লুকিয়ে আছে। যেমন ঘন কালো রাত্রির পর দিন আসে। তেমনি ধ্বংসের পর সৃষ্টি হয়। ঘন কালো মেঘ বিদায় হলেই আকাশে ঝলমলে সূর্য ওঠে। তাই ধ্বংস ছাড়া সৃষ্টির বিকাশ সম্ভব নয়।

মা কালী হলেন আদ্যাশক্তি। জগতের মূল শক্তি ইনি। ইনি মহা সরস্বতী। ইনিই মহা লক্ষ্মী। ইনি রুদ্রানী শিবানী। ইনি ব্রহ্মার শক্তি ব্রহ্মাণী, নারায়নের শক্তি নারায়নী, শিবের শক্তি শিবা। ইনি নারসিংহী, ইনি বারাহী, ইনি কৌমারী, গন্ধেশ্বরী। ইনি শ্রী রামচন্দ্রের শক্তি সীতা দেবী ( রামস্য জানকী ত্বং হি রাবনধ্বংসকারিনী ), ইনি শ্রীকৃষ্ণের হ্লাদিনী শক্তি, ইনি শ্রী রামকৃষ্ণের সহধর্মিণী মা সারদা। ইনি মহিষমর্দিনী চণ্ডী, ইনি চামুন্ডা, কৌষিকী, দুর্গা ভগবতী। এই ব্রহ্মাণ্ড তাঁর ইচ্ছাতেই চলছে। মায়ের ইচ্ছা ভিন্ন গাছের একটা পাতাও নড়ে না।

“সংহার” শব্দের অর্থ ঠিক ধবংস নয়। সংহরন। নিজের ভিতরে প্রত্যাকর্ষণ। যেমন সমুদ্রের ঊর্মিমালা সমুদ্রের বক্ষ থেকেই উদ্ভুত হয় আবার সমুদ্রেই লয় হয়। যেমন উর্ণণাভ নিজের গর্ভ থেকে জাল রচনা করে আবার নিজের পেটেই গুটিয়ে নেয়। মৃত্যুর অর্থ পৃথিবী থেকে, নিকট জনের থেকে চির বিদায় নেওয়া – কিন্তু সেই জগত জননীর কোলে আশ্রয় পাওয়া। এই ব্রহ্মাণ্ড সেই মহামায়ার ইচ্ছাতেই রচিত, সংহার কালে তিনি আবার সব গুটিয়ে নেন।

মহাদেব এখানে শব রূপ। এর মৃত্যুরুপ শিবের বুকে স্বয়ং জগত মাতা। এর মানে হল মৃত্যু কে জয়।

দেবী কালী দিগম্বরী। এর অর্থ তিনি কোন কিছুর বন্ধনে আবদ্ধ নন। তিনি দেশ কালের ওপরে। তিনি সকল জীবের মাতা।

খালি কামনা বাসনা আদি ষড়রিপু বর্জন করতে হবে। তবেই দেবকৃপা পাওয়া যাবে। তাই সম্পূর্ণ রিক্ত হয়ে অহং ও অবিদ্যা কে ত্যাগ করেই মায়ের কাছে যেতে হবে।

মা মুক্ত স্বভাবা। তাই তিনি মুক্তকেশী। তাঁর জ্ঞান খড়গের দ্বারা অষ্টপাশ ছিন্ন হলেই নিস্কাম সাধক দেবীর কৃপা পান। তবেই মুক্তি ঘটে।

রামপ্রসাদ তাই গাইলেন –
“মুক্ত কর মা মুক্তকেশী ভবে যন্ত্রনা পাই দিবানিশি।”

দেবী কালীর সেই কেশ মৃত্যুর প্রতীক। চন্ডীতে আছে মহিষাসুরের হাতে পরাজিত দেবতারা যখন ত্রিদেবের কাছে গেলেন তখন ত্রিদেব ও সমস্ত দেবতাদের তেজ রাশি একত্রিত হয়ে ভগবতী মহামায়ার আবির্ভাব ঘটে। যমের তেজে দেবীর কেশরাশি গঠিত হয়।

মায়ের কন্ঠে মুণ্ডমালা। কন্ঠমালা পঞ্চাশৎ। যা সংস্কৃত পঞ্চাশৎ বর্ণমালার প্রতীক। শব্দই হল ব্রহ্ম। কামধেনু তন্ত্রে দেবী স্বয়ং বলেছেন –
“মম কণ্ঠে স্থিতং বীজং পঞ্চাশদ্ বর্ণমদ্ভুতম্।”

রামপ্রসাদ তাই গেয়েছেন –
যত শোন কর্ণপুটে সকল মায়ের মন্ত্র বটে।
কালী পঞ্চাশৎ বর্ণময়ী বর্ণে বর্ণে নাম ধরে।

মুন্ডমালা হল জ্ঞান শক্তির প্রতীক। দেবী ব্রহ্মজ্ঞান প্রদান করেন। তিনি চেতনা দান করেন। অন্ধকারে আবদ্ধ জীবকে আলোর পথ দেখান।

দেবী কালী কটি দেশে নর হস্তের মেখলা। কিন্তু কেন ? হস্ত কর্মশক্তির প্রতীক।

দেবী কালীর ত্রিনয়ন। দেবীর একটি নয়ন চন্দ্র স্বরূপ, আর একটি সূর্য স্বরূপ। তৃতীয়টি অগ্নি স্বরূপ। দেবী ভূত, ভবিষ্যৎ, বর্তমান সব কিছুই প্রত্যক্ষ করেন। তাঁর ত্রিনয়নের ইঙ্গিতেই ত্রিকাল নিয়ন্ত্রিত হয়। প্রকাশ্য দিবালোকে, সন্ধ্যায় বা রাত্রে আমরা যে কাজ করি না কেন – তা তিনি দেখছেন।
আমরা যদি গোপনে পাপ কাজ করে প্রভাব খাটিয়ে এই পৃথিবীর বিচারসভার হাত থেকে নিস্কৃতি পাইও, তবুও দেবী সব দেখেন – তাঁর বিচার থেকে নিস্কৃতি পাওয়া যাবে না।

দেবীর চার হাত। তাঁর ওপরের দুহাতে অভয় ও খড়গ। নীচে বর মুদ্রা ও ছিন্ন নরমুণ্ড। অভয় ও বরামুদ্রা সৃষ্টির প্রতীক। খড়গ ও ছিন্ন নরমুণ্ড ধ্বংসের প্রতীক। দুটি বিপরীত কাজ হলেও আমরা মা কালীর মধ্যে দুটিকেই দেখতে পাই। এর অর্থ দেবী কালীর ইচ্ছাতেই সৃষ্টি হয়, তার ইচ্ছাতেই ধ্বংস হয়। দেবী তার খড়গ দ্বারা অবিদ্যা রুপী অসুরকে ধ্বংস করেন।

কালী মাতা কৃষ্ণবর্ণা। আদিতে যখন বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ড কিছুই ছিল না তখনও তিনি ছিলেন। তিনি অনন্ত। তিনি আদিতেও ছিলেন, তাই তিনি কৃষ্ণবর্ণা।
কখনো তিনি নীলবর্ণা। যা সুদীর্ঘ সুনীল নীল আকাশের তুলনীয়। এর অর্থ দেবী অনন্ত। অনন্ত তার লীলা প্রকাশ। যা ব্রহ্মা, বিষ্ণু, মহেশ্বরের অগোচর।

দেবী কালী উলঙ্গিনী। মা উলঙ্গিনী বটে – কিন্তু তিনি যে তাঁর বাৎসল্যের স্নেহধারা তাঁর সকল সন্তান দের জন্যই রেখেছেন। তিনিই ত অন্নপূর্ণা রুপে ধান, শস্যে ভরিয়ে দিয়েছেন। তিনি শাকম্ভরী, তিনিই শতাক্ষী। মা হল পরম করুণাময়ী। সন্তানের দুঃখে তিনি কাঁদেন, সন্তানের উল্লাসেই তিনি আনন্দিত হন।

দেবীর রক্তমাখা জিহ্বা রজঃ গুনের প্রতীক। তিনি তার শ্বেত দন্ত পাটি দ্বারা জিহ্বা কেটেছেন। শ্বেত বর্ণ হল স্বত্বঃ গুনের প্রতীক। এর মানে মা আমাদের স্বত্বঃ গুন দ্বারা রজঃ গুনকে সংহত করার শিক্ষা দিচ্ছেন।

দেবী মহাশ্মশ্মান এ বিচরণ করেন। কর্মফল ভোগান্তে জীবের শেষ আশ্রয় স্থল হল শ্মশ্মান। যেখানে তারা জননীর কোলে সুখে নিদ্রা যায়। মায়ের আঁচল এর তুলনা কোটী কোটি স্বর্গের সাথেও হয় না। যেখানে বাৎসল্যের ছোঁয়া লেগেই থাকে। “মায়ের কোলে ঘুমায় ছেলে, এ শান্তি মা কোথায় বল।”

মহাকালেন চ সমং বিপরীতরতাতুরাম।

আদ্যাশক্তি শ্রী শ্রী কালী বিশ্ব প্রসবিনী। পরম পুরুষ মহাকাল শিবের সাথে মিথুন ক্রিয়ার মাধ্যমেই তিনি সৃষ্টি করে চলেছেন। এই রতি ক্রিয়া পরমার্থিক।

এবার আসছি দশ মহাবিদ্যার প্রথম দেবী মা কালী মূর্তির প্রকারভেদ সম্বন্ধে ।
মায়ের অনন্ত কোটি রুপ । তন্ত্রে ৯ রকম কালী মূর্তির কথা আছে । সংক্ষিপ্ত আকারে তা আপনাদের বলার চেষ্টা করছি –

1.## দক্ষিণা কালী মাতা

“ করালবদনাং ঘোরাং ” ধ্যান মন্ত্র টি দক্ষিণা কালীর ধ্যান । তিনি করালবদনা , ঘোরা , মুক্তকেশী , চতুর্ভুজা , দিব্যা এবং মুন্ডমালা বিভূষিতা । তিনি মহা মেঘ প্রভা শ্যামা ও দিগম্বরী । তাঁর গলদেশের মুন্ডমালা থেকে রুধিরধারা বিগলিত হয়ে সর্বাঙ্গ অনুলিপ্ত করছে । তার কর্ণে শবদ্বয় ভূষণ রুপে বিদ্যমান , এবং তাতে তিনি হয়েছেন আরো ভয়ানক । তিনি ঘোর দ্রংষ্ট্রা , করান্যাসা , পীনোন্নতপয়োধরা , শব সমূহের কর দ্বারা দেবীর কাঞ্চী রচিত এবং তিনি হাস্যমুখী । দেবী ঘোররাবা , মহারৌদ্রী ও শ্মশ্মান বাসিনী । তাঁর ত্রিনয়ন নবোদিত সূর্য মণ্ডল স্বরূপ । দেবী সুবিন্যস্ত ও সুপরিপাটী দন্ত বিশিষ্টা , তাঁর আলুলায়িত কেশরাশি দক্ষিণ ভাগে লম্বমান । তিনি শবরুপী মহাদেবের হৃদয়োপরি অবস্থিতা । দেবীর চতুর্দিকে চিৎকার পরায়ণ শিবা গণ অবস্থান করেন এবং দেবী মহাকালের সাথে বিপরীত ক্রিয়াতে রতা । দেবীর বদন সুখপ্রসন্ন , তাঁর শ্রী মুখপদ্ম মৃদুমন্দ হাস্যে সমুজ্জ্বল ।
আমরা সকলে দক্ষিণা কালীর ই পূজো করে থাকি ।

2.## শ্মশ্মান কালী মাতা

ইনি অঞ্জনাদ্রিনিভা , রক্তনেত্রা , মুক্তকেশী , শুস্কমাংসা , অতি ভৈরবা , পিঙ্গল নয়না । এঁনার বাম হস্তে মাংস ও মদ থাকে দক্ষিণ হস্তে সদ্যশ্ছিন্ন নরমুণ্ড থাকে । ইনি স্মিতবক্ত্রা , সর্বদা আমমাংস চর্বণ তৎপরা , নগ্না , সদা মদ্যপানে প্রমত্তা । ইনি নানা অলঙ্কার পড়েন ।

এঁনার পূজা গৃহস্থ বাড়িতে হয় না । শ্মশ্মানেই এই মায়ের পূজো হয় ।

3.## গুহ্যকালী মাতা

ইনি মহামেঘপ্রভা , কৃষ্ণ বস্ত্র পরিধান করেন , লোলজিহ্বা , ঘোর দ্রংষ্ট্রা , কোটাক্ষী , হসন্মুখী , এঁনার কন্ঠে নাগ হার । , ভালে অর্ধচন্দ্র , শিরের জটাজাল নভো স্পর্শী । ইনি শব আস্বাদনে আসক্তা । গুহ্যকালী নাগ যজ্ঞপবীত ধারন করেন , নাগশয্যেপরি বিরাজিতা । এঁনার কন্ঠদেশে পঞ্চাশৎ মুন্ড সংযুক্ত বনমালা , ইনি মহোদরী । সহস্র ফনা যুক্ত অনন্ত নাগ এঁর শিরোপরি এঁনার চতুর্দিকে নাগ গণ ফণা তুলে বেষ্টন করে থাকেন । সর্পরাজ তক্ষক দেবীর বাম হস্তের কঙ্কণ এবং অনন্ত নাগ দক্ষিণ হস্তের কঙ্কণ । ইনি নাগ নির্মিত কাঞ্চী ও রত্ন নূপুর ধারন করেন । এঁর বাম দিকে শিব সব্রুপ কল্পিত বৎস্য থাকে । ইনি দ্বিভুজা , এনার শ্রুতি দ্বয় নরদেহসমাবদ্ধ কুন্ডল দ্বারা শোভিত থাকে । ইনি প্রসন্ন বদনা , সৌম্যা , নারদাদি মুনি গণ সেবিতা । কিন্তু পুনশ্চ অট্টহাস্য কারিনী , মহাভীমা , সাধকের অভিষ্ট দায়িনী ।

গুহ্যকালীর পূজো গৃহস্থ বাড়িতে হয় না । তিনি কেবল সাধক দের দ্বারাই পূজিতা । তবে কিছু পণ্ডিত এর মতে গ্রহ দোষ কাটানোর জন্য গৃহস্থ বাড়ীতে এই মায়ের পূজো করা যেতে পারে ।

4.## সিদ্ধকালী মাতা

সিদ্ধকালী তার দক্ষিণের হস্তের খড়গ দ্বারা চন্দ্র মণ্ডল উদ্ভিন্ন করছেন । সেই চন্দ্র মণ্ডলের গলিত রস দেবীর সর্বাঙ্গ প্লাবিত করছে । তিনি বাম হস্তের কপাল পাত্রে ঐ অমৃত ধারন করে পান করছেন । দেবী ত্রিনয়নী , মুক্তকেশী , দিগম্বরা । তাঁর কটিদেশ কাঞ্চী দ্বারা বদ্ধ । শিরে মনি মুক্ত খচিত মুকুট । তিনি দীপ্তজীহবা , এঁনার তনু কান্তি নীলোৎপল সদৃশ । কর্ণে তার রবি শশী তুল্য সমুজ্জ্বল কুন্ডল দ্বয় , দেবী আলীঢ়পাদা ।
সিদ্ধকালী মাতা কেবল সাধক দের দ্বারাই পূজিতা । গৃহস্থ ব্যাক্তিরা এঁনার পূজো করেন না ।

5.## আদ্যাকালী মাতা

ইনি মেঘাঙ্গী , শশী শেখরা , ত্রিনয়না , রক্তাম্বরা , বরভয়করা , রক্তারবিন্দস্থিতা , মাধ্বীক পুস্পজাত মধুর মদ্য পান পূর্বক তাঁর সম্মুখে নৃত্যপর মহাকালকে দর্শন করে দেবী বিকাসিতাননা ।
আদ্যাকালীর পূজো গৃহস্থ ও সাধক সবাই করতে পারেন ।

6.## মহাকালী মাতা

তন্ত্রসার গ্রন্থ অনুসারে মহাকালী পঞ্চদশ নয়না , মহারৌদ্রী । এঁনার হাতে শক্তি , শূল , ধনু , বাণ , খড়গ , খেটক , বর ও অভয় থাকে । শ্রী শ্রী চন্ডী গ্রন্থানুসারে পুরাকালে ভগবান বিষ্ণুর কর্ণ থেকে মধু আর কৈটভ নামক দুই অসুর জন্মান । তারা সৃষ্টিকর্তা ব্রহ্মাকে আক্রমণ করলে , ব্রহ্মদেব প্রান রক্ষার জন্য ভগবান বিষ্ণুর স্তব করতে লাগলেন । কিন্তু যোগমায়ার প্রভাবে ভগবান বিষ্ণু যোগনিদ্রায় আচ্ছন্ন ছিলেন । ব্রহ্মদেব তখন ভগবান বিষ্ণুকে যোগনিদ্রা থেকে জাগানোর জন্য আদিশক্তির স্তব করলেন , ব্রহ্মার স্তবে সন্তুষ্ট হয়ে দেবী ভগবান বিষ্ণুকে যোগনিদ্রা থেকে জাগিয়ে প্রকট হলেন । ও মহাকালী রুপে প্রকট হলেন ।

দেবী মহাকালী দশবক্ত্রা , দশভুজা , দশপাদা , ত্রিংশ লোচনা , । দ্রংষ্ট্রা উজ্জ্বল । ইনি ভয়ঙ্করী । ইনি রুপ , সৌভাগ্য , কান্তি , মহতী , শ্রীর অধিষ্ঠাত্রী । ইনি তার ১০ হাতে খড়গ , বাণ , গদা , শূল , শঙ্খ , চক্র , ভূশণ্ডি , পরিঘ , ধনু , রুধিরাক্ত নরমুণ্ড ধারিনী ।

কেবল সাধক রাই এঁনার পূজো করতে পারেন । কথিত আছে ইনি প্রথমে সাধককে নানা ভাবে ভয় দেখান । সাধক ভয় তুচ্ছ করে সাধনার পরীক্ষায় সফল হলে ইনি নানা রকম সিদ্ধি দান করেন ।

7.## চামুন্ডাকালী মাতা

শ্রী শ্রী চন্ডী গ্রন্থানুসারে চন্ড ও মুন্ড নামক দুই দানব দেবী কৌষিকীর সাথে যুদ্ধ করতে আসলে দেবী তার ভ্রুকুটি কুঞ্চিত করেন । সেখানে থেকেই দেবী চামুন্ডার আবির্ভাব হয় । চন্ড ও মুন্ড নামক দুই দানব কে বধ করার জন্য তিনি চামুন্ডা নামে খ্যাত হন । তিনি বিচিত্র নর কঙ্কাল ধারিনী , নরমুণ্ড মালিনী , ব্যাঘ্রচর্ম পরিহিতা , অস্থি চর্মসার দেহ স্বরূপা । অতি ভীষনা , বিশাল বদনা , লোলজিহ্বা , ভয়ঙ্করী , কোটর গতা , আরক্ত চক্ষু বিশিষ্টা এবং সিংহ নাদে দিক মণ্ডল পূর্ণ কারিনী ।
চামুন্ডাকালী মাতা শব বাহনা । ইনি চতুর্ভুজা ।
এঁনার পূজো কেবল সাধক দের জন্যই । গৃহস্থ বাড়ীতে বা গৃহস্থ লোকেরা এনার পূজো করেন না ।

8.## ভদ্রকালী মাতা

তন্ত্র মতে ভদ্রকালী ক্ষুধায় ক্ষীণা । কোটোরাক্ষী , মসিমলিনমুখী , মুক্তকেশী । ভদ্রকালীর কর দ্বয়ে জ্বলন্ত অনল শিখার ন্যায় দীপ্ত পাশ যুগ্ম থাকে । দেবী পুরাণ বলেন – দেবী অন্তিমে মৃত্যুকালে ভদ্র বা মঙ্গল বিধান করেন , তাই তিনি ভদ্রকালী । কালিকা পুরাণ মতে দেবীর গাত্রবর্ণ অতসী পুস্পের ন্যায় , এবং কর্ণে উজ্জ্বল কুন্ডল থাকে । তাঁর মস্তক জটাজুট , অর্ধচন্দ্র , মুকুটে ভূষিত , নাগ হার ও স্বর্ণ হার তাঁর ভূষন । তাঁর দক্ষিণ বাহুতে শূল , চক্র , খড়গ , শঙ্খ , বাণ , শক্তি , বজ্র , দন্ড এবং বাম করে খেটক , চর্ম্ম , চাপ , পাশ , অঙ্কুশ , ঘণ্টা , পরশু , মূষল থাকে । ইনি সিংহ বাহনা , তাঁর আরক্ত ত্রিনয়ন অতিশয় দীপ্ত । ইনি বামপদ দ্বারা মহিষাসুরকে আক্রমণ পূর্বক শূল দ্বারা তাকে বিদীর্ণ করে অবস্থিতা । বস্তুত ইনি দুর্গামূর্তি ।

এঁনার পূজো গৃহস্থ ও সাধক উভয়েই করতে পারেন ।

9.## রক্ষাকালী মাতা

ইনি চতুর্ভুজা , কৃষ্ণবর্ণা , মুন্ডমালা বিভূষিতা । দক্ষিণ কর দ্বয়ে খড়গ , নীলপদ্ম থাকে । বাম কর দ্বয়ে অসি ও খর্পর থাকে । এঁনার গগনস্পর্শী জটিল শীর্ষে এবং কন্ঠে মুন্ডমালা । ইনি রক্ত চক্ষু বিশিষ্টা এবং বক্ষে নাগ হার যুক্তা । এঁনার পরিধানে কৃষ্ণ বস্ত্র , কটিতে ব্যাঘ্রচর্ম । ইনি বাম পদ শব হৃদয় এ এবং দক্ষিণ পদ সিংহ পৃষ্ঠে স্থাপন পূর্বক মদ্যপানে নিরতা । ইনি অট্টহাস্যা , মহাঘোররাবযূতা এবং সু ভীষণা ।

9.##দারুকাসুর মর্দিনী কালী মাতা
লিঙ্গ পুরান এ এই কালী মায়ের কথা বলা আছে । ইনি মহাদেবের শরীরে প্রবেশ পূর্বক মহাদবের কন্ঠে স্থিত গরলে নিজ তনু কৃষ্ণ বর্ণ করেছেন । মহাদেবের ন্যায় ইনি ত্রিশূল ধারিনী , শ্রীকরে সর্প বলয় যুক্তা । লিঙ্গ পুরান মতে ইনি দারুক নামক এক অসুরকে বধ করেছিলেন । এনাকে শ্রী কালী ও বলা হয় ।

অন্তিমে সকলে আমরা সেই আদ্যাশক্তি মা কালীকে বন্দনা করি । তিনি আমাদের সকলের মধ্যে শক্তিরুপে জেগে উঠুন । তাঁর শক্তিতেই যেন আমরা বলবান হই । কোন ক্লীবতা যেনো আমদের স্পর্শ করতে না পারে । অন্তিমে যেনো সেই জগত জননীর কোলে ফিরে যেতে পারি ।

প্রিয় বন্ধুরা আজকের অনুষ্ঠান এপর্যন্তই। খুব তারা তারি ফিরে আসবো নতুন কোনো অজানা তথ্যের ভিডিও নিয়ে। সকলে ভালো থাকুন , সুস্থ থাকুন , আর দেখতে থাকুন আমাদের চ্যানেল সমাধান।

জাগো , জাগো, জাগো জননী ,
তুমি না জাগিলে শ্যামা
আর তো কেউ জাগে না মা ,
তুমি না নাচিলে মাগো
নাচিবে না ধমনী ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.